যে বিষয় নিয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে আলোচনায় রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য

যুক্তরাজ্যে নার্ভ এজেন্ট ব্যবহার করে রুশ গুপ্তচর হত্যাচেষ্টার বিষয়ে মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছে পশ্চিমা বিশ্ব ও রাশিয়া। এই ঘটনার সঙ্গে সরাসরি সম্পৃক্ততা না থাকলেও বাংলাদেশের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র সচিব পর্যায়ে আলোচনা করেছে রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য।

 

এর কারণ, ওই ঘটনা তদন্ত করছে যে সংস্থা–অর্গানাইজেশন ফর দি প্রহিবিশেন অব কেমিক্যাল উইপনস (ওপিসিডব্লিউ), তার প্রধান নেদারল্যান্ডসে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত।

 

আজ বুধবার (৪ এপ্রিল) নেদারল্যান্ডসে ওপিসিডব্লিউর সদর দফতরে রাশিয়ার অনুরোধে রুশ গুপ্তচর হত্যাচেষ্টার বিষয়ে বিশেষ অধিবেশন বসেছে। এই অধিবেশন সভাপতিত্ব করছেন নেদারল্যান্ডসে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত শেখ মোহাম্মদ বেলাল। ওপিসিডব্লিউর সদস্য ৪৪টি দেশ।

 

 

 

আজ বিকালে নেদারল্যান্ডসে যখন বিশেষ অধিবেশন চলছিল তখন ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্রের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূত জোয়েল রিফম্যান পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হকের সঙ্গে দেখা করে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেন।

বৈঠক শেষে ওপিসিডব্লিউ নিয়ে আলোচনা হয়েছে কিনা জানতে চাইলে জোয়েল রিফম্যান বলেন, ‘আমরা বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছি। আমরা রাশিয়ার কার্যকলাপে উদ্বিগ্ন। দেশটি আন্তর্জাতিক সব আইন ভঙ্গ করেছে। আমরা আমাদের উদ্বেগের কথা এখানকার কর্মকর্তাদের জানিয়েছি। আমরা এটি নিয়ে আবারও কথা বলবো।’

x

গত ২২ মার্চ রাশিয়া গুপ্তচর হত্যাচেষ্টার বিষয়ে তাদের অবস্থান সম্পর্কিত একটি নোট বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তর করে। অন্যদিকে, যুক্তরাজ্য ৪ মার্চ হত্যাচেষ্টা ঘটনা ঘটার কয়েকদিন পর বাংলাদেশকে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়েছিল। গত এক সপ্তাহের মধ্যে যুক্তরাজ্যের রাষ্ট্রদূত অ্যালিসন ব্লেক অন্তত দু’বার পররাষ্ট্র সচিবের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে বৈঠক করেছেন।

গত সোমবারও মস্কোয় বাংলাদেশ ও রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে ওপিসিডব্লিউ এর তদন্ত নিয়ে আলোচনা হয়।

রুশ সংবাদ সংস্থা তাস দুই মন্ত্রীর বৈঠকের পর রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লেভরভকে উদ্ধৃত করে জানিয়েছে, ওপিসিডব্লিউতে কীভাবে রাষ্ট্রগুলো সহযোগিতা করতে পারে সে বিষয়ে আলোচনা করেছেন দুই মন্ত্রী।

গত ২৯ মার্চ ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে এবং ২ এপ্রিল পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পররাষ্ট্র সচিবের সঙ্গে বৈঠক করে যুক্তরাজ্যের রাষ্ট্রদূত তাদের উদ্বেগের বিষয়টি জানান।

গত ২৯ মার্চ নেদারল্যান্ডসে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ও ওপিসিডব্লিউ প্রধান শেখ মোহাম্মাদ বেলালকে রাশিয়ার পক্ষ থেকে একটি চিঠি দিয়ে ৪ এপ্রিল রুশ গোয়েন্দা হত্যাচেষ্টা ঘটনার ওপর একটি বিশেষ অধিবেশন ডাকার অনুরোধ করা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে বৈঠকটি ডাকা হয়।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

To top ↑